| | |

তোমাকে যে মনে পরে মা – কবিতা

 মা

মৃত মাকে নিয়ে কবিতা
আজ বহু দিন পর সবের মাঝে ও যেন একাকীত্বর অনুভব হচ্ছে। মনের আকাশটা কেমন যেন মেঘলা হয়ে উঠেছে। আমার মৃত মায়ের ছবিগুলি চোখের সামনে ভেসে উঠছে। আর থাকতে পারছিনা এবার কলম তুলে লেখা শুরু করি আমার সে স্নেহময়ী হারানো মা কে নিয়ে কবিতা।
প্রজন্মের অন্তরালে- কোথায় হারিয়ে গেলে
আমার সে স্নেহমহী মা।  
তোমাকে যে মনে পরে-কত না জীবন ঝড়ে 
মিটে যেত যত কিছু ঘা। 
 
তোমার নিবিড় চোখে- স্নেহের মমতা দেখে 
সেই ঘুম কথা গেলো মা ?
খুঁজে ফিরি সেই মাকে- যার শুধু এক ডাকে 
থেমে যেতো  মোর এই পা। 
ক্লান্তিহীন তুমি ছিলে- জানিনাকো কোন বলে 
সাহস জোগাতে তুমি মা 
সমস্যার আঙিনাতে- তুমি জেগে যেতে প্রাতে 
জাগিয়ে বলতে শুধু “যা”।
তোমার আশীষ নিয়ে- সুখ যে আনিনু লয়ে 
আঁচল যে ভোরে  দেব মা। 
আজ তুমি সাথে নাই- কোথায় রাখিব তাই 
খালি আছে কোন আঙিনা ?
 
পাখার বাতাস হাতে- হাত দিয়ে দিতে মাথে 
কত রাত জেগে ছিলে মা। 
আজ শুধু মনে পরে- স্মৃত হাসি ওই দ্বারে 
আজ আর কেউ ডাকে না। 
 
নতুন যুগের তালে- যান্ত্রিকতার দাবানলে 
হারিয়ে গেছো যে তুমি মা। 
নতুন মায়েরা আছে- ব্যাথা যে পেয়োনা পাছে 
ওই মা তো হতে পাবেনা। 
 
সুখের যে গোঁজা মিলে- খালি স্বামী আর ছেলে 
ব্যাস্ত বড় এ কালের মা।
সবাই কে নিয়ে চোলে- তুমিওতো ব্যাস্ত ছিলে 
তবু কোনো মিল পাইনা।
 
মনে পরে ছেলে বেলা- খাওয়া তে তো হেলাফেলা 
স্কুল কভু যাওনিকো মা। 
এখন স্কুলের পথে- মা স্মার্টফোন সাথে 
মনে হয়ে তবু একেলা। 
 
স্মৃতির এ ঘেরা টোপে- তোমাকে হারানো শোকে
ভুলতে  পারিনা কেন মা।  
পুরানো বিচারধারা-লাগে বড় আনকোরা 
রোমন্থনে স্বর্ণযুগ তা। 
 
জন্মান্তর যদি থাকে- নতুন জীবন বাঁকে 
ফের তুমি হয়ো মোর মা। 
শিশুর জিজ্ঞাসু চোখে- তোমাকে যে ফের দেখে
মনে পাবো বড় স্বান্ত্বনা। 
 
—শঙ্খচূড় 
               ২৪এ বৈশাখ ১৪২৭ 
   
জীবনে মা কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝাতে ও বর্ণনা করার মতো শব্দ এবং বুদ্ধি আমার কাছে নেই। সে আপনাকে জীবন দেয় এবং তারপরে নিজের জীবন সম্পর্কে সব ভুলে যায়।
আমার কাছে আর শব্দ নেই মা বিষয় লেখার জন্য। আশা করছি যে এই কবিতাটি আপনাদের হৃদয়কে স্পর্শ করতে পেরেছে। ধন্যবাদ।
আমার আরও কবিতা পড়ে দেখুন:
উক্তি x
উক্তি